1. hasanf14@gmail.com : admin : Hasan Mahamud
বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১:৫১ অপরাহ্ন

ভাবছি এবার একটা ভোট দেব, কেন দেব?

  • প্রকাশ : শনিবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪৭ বার
ফাইল ছবি

সাঈদ তারেক:
ভাবছি এবার একটা ভোট দেবো। ভোটকেন্দ্রে গিয়ে সেই কবে ভোট দিয়েছি মনে নেই। ’৭৩-এ বয়স হয়েছিলো ভোটার হওয়া হয় নেই। ’৭৯তে গ্রামে ছিলাম কমরেড প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায়। ’৮৬তে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার প্রয়োজন মনে করিনি। ’৮৮তে গ্রামে। একবার ভোট দিতে গেলে পাড়ার ছেলেরা বলেছিলো ভাই বাসায় চইলা যান গা, আপনের ভোটটা আমরা দিয়া দিছি। একদফা দেশের বাইরে। ’১৪তে কারও ভোট দেওয়ার দরকার পড়েনি। আর ’১৮ তো সেদিনের কথা। এই ‘জাতীয় লজ্জা’ আর মনে নাই করলাম। যদিও এই নির্বাচন কমিশনকে বিশ্বাস করার কোনো কারণ নেই তারপরও এবার মনে করছি সিটি নির্বাচনে সেন্টারে গিয়ে একটা ভোট দেওয়া যায় কি না। আমাদের দেশে এখন সব সিদ্ধান্তই আসে খোদ সরকার প্রধানের কাছ থেকে। তিনি না বলা পর্যন্ত কেউ নড়ে না। জানি না এই নির্বাচন নিয়ে তার চিন্তাভাবনা কি, তবে শেষ মুহূর্তে যদি কোনো ইচ্ছা ব্যক্ত করে বসেন নির্বাচন কমিশন থেকে শুরু করে তাবৎ প্রশাসন তার বাইরে যেতে পারে এমনটা কোনো দুগ্ধপোষ্য শিশুও মনে করে না। এসব বিবেচনায় নিয়েও ভোট দিতে যাওয়া যায় বলে ভাবছি। কিন্তু ঠিক করতে পারছি না মেয়রের জন্য ভোটটা দেবো কাকে। আমার এলাকায় যে দু’জন প্রার্থী হয়েছেন দু’জনই সেকেন্ড জেনারেশন।

একজন মনি ভাইর ছেলে। ভালো লেখাপড়া জানে, বিলাত গিয়ে ব্যারিস্টারি পাস করে এসেছে। পশারও জমিয়েছে ভালো। আরেকজন বন্ধু-সহপাঠী সাদেক হোসেন খোকার ছেলে। শিক্ষিত মার্জিত, ইঞ্জিনিয়ার। দু’জনই স্নেহাষ্পদ। কাকে রেখে কাকে ভোটটা দিই। যদিও জানি যেই নির্বাচিত হোক রাস্তা ঝাড়ু দেয়া বা মশা মারা ছাড়া তাদের করার কিছু নেই। নামেই তারা মেয়র, নগর পিতা। মফস্বল এলাকায় একজন পৌর মেয়রের যে ক্ষমতা আছে তাদের তাও নেই। ঢাকার মেয়ররা রাস্তায় লাইটের খাম্বায় বাতি লাগাতে পারেন, কিন্তু খাম্বা বসানো বা সরানোর ক্ষমতা রাখেন না। ট্রাফিক সিগনাল বসান, কিন্তু ওইগুলো কেউ মানছে কি না তার তদারকি করতে পারেন না। তারা কারও বাসায় গ্যাস সংযোগ দিতে পারেন না, বিদ্যুৎ পানির লাইন দিতে পারেন না, নর্দমা তৈরি করতে পারেন না, স্ট্রিট লাইট বসাতে পারেন না। রাস্তা মেরামত করে দেয় সিটি করপোরেশন রোড ট্যাক্সের টাকা নিয়ে যায় বিআরটিএ। নগরের পিতা তারা কিন্তু নগরের ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা তাদের হাতে নেই।

যানবাহন চলাচলের রুট ঠিক করে দিতে পারেন না। বিল্ডিংয়ের ট্যাক্স নেয়, কিন্তু বিল্ডিং বানানোর অনুমোদন দিতে পারে না। নগরে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে নেই নিজস্ব কোনো পুলিশ বাহিনী। সরকারের চুয়ান্নটা প্রতিষ্ঠান নিজেদের খেয়ালখুশিমতো নগরবাসীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। তাদের কারও সঙ্গে কারও সমন্বয় নেই। তাদের এই উৎকট সেবার যন্ত্রণায় নগরবাসীদের প্রাণ ওষ্ঠাগত। এ রকম একটা অসভ্য হ য ব র ল জগাখিচুড়ি সিস্টেমে মেয়র হচ্ছে একটা গালভরা নাম। ঢাল নেই তলোয়ার নেই নিধিরাম সর্দার। রাস্তা ঝাড়ু দেয়া, অন্যে রাস্তা নষ্ট করে দিয়ে গেলে মেরামত করা, ময়লা-আবজর্না ফেলা, লাইটের খাম্বার বাল্ব লাগানো, মশা-মাছির উপদ্রব বেড়ে গেলে ওষুধ ছিটানো ছাড়া এই সর্দারদের আর কোনো কাজ নেই। পৃথিবীর সব সভ্য এবং উন্নত শহরে সিটি গভর্নমেন্ট ব্যবস্থা প্রচলিত আছে। অর্থাৎ নগরবাসীদের যাবতীয় পরিষেবার দায়িত্ব পালন করে একটিমাত্র সংস্থা। নগর সরকার। মেয়র হচ্ছেন এই সরকারের প্রধান। মরহুম মো. হানিফ মেয়র থাকার সময় এ রকম একটা নগর সরকারের জন্য বহু চেষ্টা তদবির করেছেন। কিন্তু ওই চুয়ান্ন সংস্থার প্রবল বিরোধিতার কারণে সফল হননি। সরকার প্রধানরাও মনে করে থাকতে পারেন তারা থাকতে আবার নগর প্রধানের কি দরকার।

তারপরও ঢাকায় সিটি করপোরেশন আছে। আগে ছিলো একটা, এখন দুইটা। প্রধানমন্ত্রী মহোদয় একসময় বলেছিলেন টাকা থাকলে চারটা করতেন। এই সিটিতে ভোট হবে। গালভরা নাম নিয়ে দুইজন মেয়র হবেন। তারপর চিরাচরিত নিয়মেই চলতে থাকবে সব কিছু। আমার এবার ভোট দিতে যাওয়ার ইচ্ছার কারণ দু’টি। ভাবেসাবে মনে হচ্ছে এ দফা হয়তো সেন্টারে যাওয়া যাবে, দ্বিতীয়ত : এই ইভিএম ব্যপারটা কি সরেজমিনে গিয়ে দেখে আসা। দেখতে গেলে ভোটটা তো কাস্ট করতে হবে। কাউন্সিলরদের এবার দলীয় মার্কা নেই, কারা দাঁড়িয়েছে চিনি তো নাই-ই জানিও না। যদি কাউন্সিলর ভোট দেওয়া বাধ্যতামূলক হয় তাহলে হাতি, ঘোড়া, বাঘ, ভাল্লুক ইঁদুর-বান্দরের মধ্য থেকে লটারি করে একটায় দেয়া যাবে। কিন্তু মেয়র পদে কাকে ভোটটা দেবো এই সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। একটা ওপেনিয়ন পল করতে চাই। কেউ সাহায্য করলে কৃতার্থ হবো।

(মতামত বা প্রতিক্রিয়া লেখকের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি)

...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো আর্টিকেল
© All rights reserved © 2020 Public Reaction
Theme Customized By BreakingNews