1. hasanf14@gmail.com : admin : Hasan Mahamud
বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১:০৫ অপরাহ্ন

স্বপ্ন ছুঁয়েছে ক্রিকেট

  • প্রকাশ : বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩৩ বার

শুভেন্দু সাহা:
আরব্য রজনীর ইতিহাস কিংবা মহাকাব্যের মহাচরিত্রগুলো আমাদের যতটা মোহিত করে, তার থেকেও আমরা বেশি আমোদিত হই আমাদের ঐতিহ্যে, অর্জনে, সমৃদ্ধি ও গর্জনে।

মৃত্তিকা ও মায়ের মতোই কোমল, সবুজের সমারোহে শ্যামল অপরূপ সুন্দর এই দেশের প্রত্যেক মানুষ মিলে তৈরি করে একেকটি গল্পের প্লট, যেখানে দুঃখ আছে, বিসর্জনের কান্না আছে, হাজার বছরের পলিমাটির সোঁদা গন্ধ আছে, আবার ঘুরে দাঁড়ানোর আনন্দও আছে।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তি সংগ্রামের পর যেসব অর্জন আমাদের আনন্দ দিয়েছে তার মধ্যে অন্যতম ক্রিকেট। একসময়ের ব্রিটিশ শাসনের জাঁতাকলে পিষ্ট হওয়া বাঙালি চার-ছক্কার এই ধুন্ধুমার ব্রিটিশ খেলা ক্রিকেটকে বর্তমানে এক সর্বজনীন উৎসবে রূপ দিয়েছে। পূর্ব পাকিস্তানে থাকাকালীন এ অঞ্চলে ক্রিকেট খেলা হলেও সেটি বাঙালি জাতিসত্তার পরিচয়ে নয়।

বাংলাদেশ ১৯৭৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসি ট্রফিতে অংশ নেয়। দুই জয় আর সমানসংখ্যক পরাজয় নিয়ে বাংলাদেশ শুরু করে নতুন গল্পের। এরপর পাকিস্তানের সঙ্গে ১৯৮৬ সালের ৩১ মার্চ প্রথম একদিনের ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বিশ্বকে জানান দেয় নিজেদের পরিচয়।

এর পর সাফল্যের পাখায় যুক্ত হয় কত পালক- ১৯৯৭ সালে মালয়েশিয়ায় আইসিসি ট্রফি জয়, ১৯৯৯ সালে বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ এবং ক্রিকেটের অন্যতম পরাশক্তি পাকিস্তানকে পরাজিত করা, ২০০০ সালে টেস্ট খেলার গৌরব অর্জন, ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে সেরা আটে ওঠার গৌরব অর্জন, ২০১৫ সালে কোয়ার্টার ফাইনালে অংশগ্রহণ, ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে সেমিফাইনাল খেলা, ২০১২, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের এশিয়া কাপের ফাইনালে স্বপ্নভঙ্গ হলেও বাঙালির কাছে ক্রিকেট এক অনাবিল আনন্দের নাম, চিরজাগরূক উৎসবের নাম।

চড়াই-উতরাইয়ের এই যাত্রাপথে বাংলাদেশ বাংলাওয়াশের স্বাদও দিয়েছে অনেক দলকে। উত্থান হয়েছে মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ নামের পঞ্চপাণ্ডবের। ক্রিকেটের বরপুত্র হিসেবে সাকিব আল হাসান স্থান করে নিয়েছেন ক্রিকেট রেকর্ডবইয়ের পাতায়। বেশ কয়েকবার হয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

শুধু খেলোয়াড় বা কোচিং দর্শনে নয়, বাংলাদেশ সফলভাবে আয়োজন করার সক্ষমতা দেখিয়েছে ক্রিকেটের নানা বড় ইভেন্টের। ক্রিকেট অন্তঃপ্রাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ কোটি কোটি প্রাণের ভালোবাসাযুক্ত সমর্থনে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল হয়েছে সমৃদ্ধ, এসেছে সাফল্য আর বাঙালি মেতেছে বাঁধভাঙা উল্লাসে।

একসময় তলাবিহীন ঝুড়ি বলে যারা বাংলাদেশকে নিয়ে উপহাস করত, আজ তারা বলে বেড়ায়- বাংলাদেশ সমৃদ্ধির দেশ, শান্তির দেশ, আনন্দের দেশ, উৎসবের দেশ, ক্রিকেটের দেশ!

কিন্তু এসব আনন্দের মধ্যেও শূন্যস্থানে বসেনি অভিবাদন শব্দটি, হৃদয়ে আসেনি অভিনন্দনের চূড়ান্ত বহিঃপ্রকাশ। কারণ অধরা রয়ে গেছে বড় কোনো আসরের বড় কোনো ট্রফি, বিশেষ করে বললে বিশ্বকাপ।

অধরাকে ধরার এক আক্ষেপ, অজেয়কে জয় করার সুগভীর মর্মবেদনা আর একাত্তরের অসীম শক্তিমত্তা প্রদর্শনকারী জাতিকে আর কতদিনই আটকে রাখতে পারে। অবশেষে শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে জনতার কবির জন্মশতবর্ষে বাঙালির হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান করে নিল উনিশ না পেরোনো আকবর সেনারা, গণসমুদ্রে জোয়ার জাগল, হ্রসধ্বনিতে মেতে উঠল পুরো দেশ।

ক্রিকেট পরাশক্তি ভারতকে পরাজিত করে বাংলাদেশ জয় করে নিল বিশ্বকাপ। অভিনন্দন তাদের, ভালোবাসা তাদের জন্য, অনুপ্রেরণা বড়দের জন্য যাতে করে আরও বড় মঞ্চের ঊর্ধ্বাকাশে উড়তে থাকে লাল-সবুজের পতাকা। অন্তরাত্মায় বেজে ওঠে- ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, বাংলা বিভাগ, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো আর্টিকেল
© All rights reserved © 2020 Public Reaction
Theme Customized By BreakingNews